টাকার বিনিময়ে চলছে স্কুলছাত্রীদের রমরমা প্রেম বাণিজ্য!

তথ্যটি জানিয়ে শিশু নির্যাতন বিশেষ করে জাপানের বিনোদন ক্যাফেগুলোতে কর্মরত কিশোরীদের ‘শোষণ’ বন্ধে জাপান সরকারকে আরো কাজ করারও আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসংঘের ওই কর্মকর্তা।

জাপানে ১৩ শতাংশ স্কুলছাত্রী অর্থের বিনিময়ে প্রেম করে। অবাক করা এই তথ্যটি জানিয়েছে জাতিসংঘের শিশু অধিকার বিষয়ক সংগঠনের বিশেষ দূত মাওদ দে বোয়ের-বুকিউচিও।

 মাওদ দে আরো জানান, অর্থের বিনিময়ে কিশোরীদের প্রেমে অংশ নেওয়ার এই পরিসংখ্যান সরাকারি নয় এবং চূড়ান্ত প্রতিবেদনও নয়।তবে তিনি বলেন, ‘এ ব্যাপারে সরকারি কোনো পরিসংখ্যান না থাকাটা জাপান কর্তৃপক্ষের উদসীনতারই পরিচয় প্রকাশ পায়।’এদিকে ‘শিশু নির্যাতনের’ এই তথ্য প্রকাশের পর অসন্তোষ জানিয়েছে জাপানের সরকার।

এক বিবৃতিতে দেশটির শিশু অধিকার বিষয়ক সেলের এক কর্মকর্তা জানান, জাপানে শিশু অধিকার রক্ষায় দেশটির সরকার সবসময়ই অধিকতর গুরুত্ব দিয়ে এসেছে। ‘এনজো কোসাই’-এর অভিযোগটি সত্য নয়।

এদিকে জাপানের মানবাধিকার সংগঠনগুলো বিনোদন ক্যাফেগুলো বন্ধে পদক্ষেপ নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে। দেশটির রাজধানী টোকিওতে শিশুদের মধ্যে ‘অবাধ যৌন সংস্কৃতি’ গ্রহণযোগ্য হয়ে ওঠার পরিপ্রেক্ষিতে এই আহ্বান জানায় তারা।

 মাই নামের এক ছাত্রী স্কুলের পর এক বিনোদন ক্যাফেতে কাজ করে। এই ক্যাফেতে প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষরা অর্থের বিনিময়ে কিশোরীদের সঙ্গে বসে গল্প করে।স্কুল ইউনিফর্ম পরিহিত মাই আল-জাজিরাকে বলে, ‘এখানে যারা আসে তাদের মধ্যে অনেকই আমার দাদার (পিতামহ) বয়সী। তাঁদের সঙ্গে কথা বলে আমি টাকা পাই।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

[X Close Ads বিঙ্গাপন কাটুন]
Loading...